আপনার কোম্পানিকে ক্রমবর্ধমান রাখতে ১৪টি ধাপ

0
274
আপনার কোম্পানিকে ক্রমবর্ধমান রাখতে ১৪টি ধাপ
5 (100%) 1 vote

একজন উদ্যোক্তা হিসাবে আপনার নিজের ব্যবসা চালানোর জন্য যে জিনিসটি লাগবে তা হল একজন দক্ষ উদ্যোক্তা হিসেবে আপনার কোম্পানির তলোয়ার ধার করার মতো কাজ করা। কর্মক্ষেত্রে প্রতিটি জায়গাতেই প্রতিযোগিতার সীমা নেই। যে কাজই করতে ইচ্ছুক হোন না কেনও আপনাকে সবার সাথে প্রতিযোগিতা করে ঠিকে থাকতে হবে। তবে সবার মাঝে টিকে থাকাটা অনেক কঠিন এবং সেটি সবার দ্বারা সম্ভবও হয়না। কারণ, প্রতিযোগিতার বাজারে যারা নিজেকে একটি ভিন্নভাবে উপস্থাপন করতে পারেন কেবল তারাই সফলতার সাথে টিকে থাকে।

১। আপনি যা পেয়েছেন তা প্রদান করুন
একটি কোম্পানিকে সামনে অগ্রসর করার জন্য আপনি যা অর্জন করেছেন তা থেকে কোম্পানির ভালোর জন্য বিনিয়োগ করুন। কোম্পানির কর্মীদের প্রশিক্ষণ দিন এবং তাদের আরও উৎসাহিত করুন। আপনার ব্যবসা আপনি এক জায়গায় থামিয়ে রাখতে পারেন না। একে ক্রমবর্ধমান করার জন্য আপনার অনেক পদক্ষেপ নিতে হবে। আবার ব্যবসার শুরুতে যদি উপার্জনের সম্পূর্ণ অর্থই ব্যয় করে ফেলা হয় তাহলে প্রতিষ্ঠানের বৃদ্ধি সম্ভব হবে না। এ ক্ষেত্রে তাই সব লাভ উঠিয়ে না নিয়ে বরং কিছু অর্থ ব্যয় করে প্রতিষ্ঠানের বৃদ্ধির জন্য চেষ্টা করা উচিত।

২। পরবর্তী সমস্যার উপর ফোকাস দিন
একটি কোম্পানি চালানোর জন্য অনেক ধরনের সমস্যার কথা মাথাই রেখে কোম্পানি চালাতে হয়। সামনে অনেক ধরনের বাঁধার সম্মুখীন হতে হয়। সমস্যা থেকে দূরে গেলে আপনার সমস্যা আরও বাড়বে। তাই সমস্যার সমাধান করুন এবং একটি ভালো পরিকল্পনা করুন। আপনার সমস্যা গুলো চিহ্নিত করুন। কিভাবে সমাধান করা যায় তাই ভাবুন। প্রয়োজনে এ সকল সমস্যা সমাধান করার জন্য উপযুক্ত লোক রাখুন।

৩। নতুন পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়ানো
এই নতুন অর্থনীতিতে পুরাতন কৌশল অনেক সময় কাজ করবে না। ‘ব্যবসা-অস্বাভাবিক’ কিছু সময়ের জন্য স্বাভাবিক হবে। এইসব নতুন চ্যালেঞ্জ মানিয়ে নিতে হবে। প্রতি বছরই নতুন পরিকল্পনা গ্রহন করে থাকে। তখন কোম্পানির অনেক কিছুতেই পরিবর্তন হয়। তখন সবারই উচিত নতুন পরিবর্তনের সাথে খাপ খাওয়ানো। যারা পারবে না তাদেরকে সাহায্য করতে হবে।

৪। প্রতিযোগীদের দিকে নজর দিন
আপনার অনেক প্রতিযোগী কোম্পানি থাকবে। তারা কিভাবে কাজ করছে কিভাবে তারা তাদের কোম্পানিকে সামনের দিকে নিচ্ছে সে দিকে নজর দিন। প্রতিযোগীরা কিভাবে তাদের পরিকল্পনা অনুযায়ী সামনে অগ্রসর হচ্ছে সে দিকে নজর দিন। ভাবুন ও পরিকল্পনা করুন কিভাবে আপনার প্রতিযোগী কোম্পানিকে পেছনে ফেলে আপনি সামনে অগ্রসর হবেন।

৫। পন্যের মুল্য নির্ধারণ
আপনি নিশ্চয় গনিত করতে পারেন। তাহলে অবশ্যই বুঝবেন ব্যবসার ক্ষেত্রে সঠিক মূল্য নির্ধারন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারন সঠিক পন্য মুল্য বাজারে আপনাকে টিকে থাকতে সহায়তা করবে। একটি কোম্পানির অধিক মুনাফা নির্ভর করে আপনি আপনার কোম্পানির পন্য মুল্য নির্ধারণের উপর। যদি আপনি বাজারে যে মুল্য আছে তার চেয়ে বেশি পন্য মুল্য দেন তাহলে ক্রেতারা আপনার পন্য কেন কিনবে যদি একই পন্য তুলনা মুলকভাবে কম মুল্যে পাই। অনুরুপভাবে এতো কম মুল্য নির্ধারণ করাও ঠিক হবে না যেন আপনার পণ্যটির জন্য আপনার কোম্পানির ক্ষতি হয়। তাই বাজার দর সব দিক বেবেচনা করে সামঞ্জস্যতা রেখে আপনি পন্য মুল্য নির্ধারণ করুন যেন আপনার কোম্পানির লোকসান না হয়।

company-2

৬। সঠিক কর্মী বাছাই করুন
সব কাজ সবাইকে দিয়ে হয় না। যে মানুষ যে কাজে দক্ষ তাকে সেই কাজই দিতে হয়। অদক্ষ মানুষ নিয়োগ করলে আপনার ব্যবসার সুনাম এমনভাবে নষ্ট হতে পারে, যার ফিরিয়ে আনা দুরূহ। আর তাই ব্যবসায় উন্নতির জন্য দক্ষ কর্মীর বিকল্প নেই।

৭। অযৌক্তিক হউন
এখন সময় যুক্তিবাদী হওয়ার নয়। আপনার কোম্পানিকে বড় করার জন্য যে সঠিক লজিক অনুযায়ী কাজ করতে হবে এমন না। আপনি সম্ভবত এখনই চাইবেন না আপনার কাজ দেখাতে এবং আপনি বর্তমান রাষ্ট্রীয় জ্ঞান তৈরীর চেষ্টা করতে চাইবেন না। কারন আপনি কেবল সামনের দিকে অগ্রসর হচ্ছেন। আপনার এমন অনেক লজিক বাদ দিতে হবে। যখন আপনি বাজারে প্রাধান্য বিস্তার করতে পারবেন তখন আপনি ফোকাস দিবেন আপনার প্রতিযোগীদের “যুক্তিবাদী” এবং “লজিক্যাল” নীতির দিকে। শুরুতেই মনে রাখতে হবে, সব ধরনের কাজ করে সবাইকে খুশি রাখার চেষ্টা না করাই ভালো, এতে করে কোন একক কাজ ভাল ভাবে না করতে পারা বা নিজের বিশেষ দক্ষতা ফুটে উঠে না। যে কারনে বিভিন্ন ধরনের সেবা প্রদানের প্রস্তাব, নিজের ক্ষমতার বাইরে গিয়ে পণ্য উদ্ভাবনের চেষ্টা অথবা কিছু টাকার জন্য পূর্বনির্ধারিত বাজারের বাইরে বিপননের চেষ্টা করা সব সময় ঠিক নয়। যখন এটা করা হয় তখন লক্ষ্য অর্জন ঝুঁকির মুখে পরে এবং আপনি আপনার দলের সদস্যদের, বাজেট এবং সর্বোপরি আপনার প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি অযাচিত বোঝার সৃষ্টি করেন।

৮। ঝুঁকি কমাতে হবে
ব্যবসা শুরু করার সময়ই ঝুঁকির বিষয়টি মাথায় রাখতে হয়। সবকিছু নিয়ন্ত্রণ করা অনেক সময়ই অসম্ভব হয়ে পড়ে। আর এ কারণে ঝুঁকি কমানোর জন্য নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা উচিত। ভালোভাবে চেষ্টা করলে এ বিষয়টিও নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।

৯। প্রতিষ্ঠানে অস্থির ভাব দেখাবেন না
অস্থিরতা কাজের প্রধান অন্তরায়। তাই কর্মরত অবস্থায় আপনার অস্থিরতা এড়িয়ে চলুন। এটা আপনার কাজের পরিবেশকে নষ্ট করতে পারে। এছাড়া কখনও টেবিলে আঙ্গুল বাজাবেন না, বসের সামনে মাথার চুল আচড়াবেন না, কোনো দুশ্চিতা করবেন না। সবসময় আত্মবিশ্বাসী থাকুন, তবেই দেখবেন সফলতা আপনার কাছে ধরা দেবে।

১০। মুনাফাই একমাত্র লক্ষ্য নয়
মেধাহীন ব্যক্তিদের দিয়ে কোন ব্যবসায় চলছে এবং উন্নতি লাভ করছে এমন নজির খুব কমই আছে। সত্যি বলতে, আমরা প্রায়ই বলি মানুষই হল আমদের একমাত্র সম্পদ যারা প্রতিষ্ঠানের উন্নতির জন্য কাজ করে যাচ্ছে এবং আমরা সবসময়ই তাদের উন্নত সুযোগ-সুবিধা প্রদানের চেষ্টা করি যার কারণে তারাও আমাদের সাথে কাজ করতে চায়। অনেক প্রতিষ্ঠান এটা ভুলে যান যে, কাজের প্রতি নিষ্ঠা তখনই আসে যখন কর্মীরা এটা বিশ্বাস করে যে প্রতিষ্ঠান এবং এর কর্তা ব্যক্তিরা তাদের সাথে ব্যক্তিগতভাবে এবং পেশাদারীত্তের কারনে একে অপরের সাথে জড়িত। তখন কর্মীরা কাজের উদ্দম হারিয়ে ফেলে এবং প্রতিষ্ঠান তার লক্ষ্য অর্জনে ব্যর্থ হয়।

১১। আত্মবিশ্বাস
যে কোনো প্রতিষ্ঠানে কাজের ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাস একটি বড় জিনিস। যা আপনাকে কাজের শক্তি যোগায়। তাই সবকিছু পরিচালনার ক্ষেত্রে আত্মবিশ্বাসী থাকুন। যেন এটা ছাড়া অন্য কেউ আপনার সম্পর্কে দ্বিতীয় মন্তব্য না করতে পারেন। এমনকি যদি রাগান্বিত থাকেন তারপরেই নিজেকে স্বাভাবিক রাখূন। কখনও উত্তেজিত হবেন না।

১২। গ্রাহককে সন্তুষ্ট করুন
আপনার গ্রাহককে সন্তুষ্ট ও খুশি রাখার চেষ্টা করুন। একজন বিক্রেতার ব্যাবহারের মাধ্যমেই গ্রাহকের মন পেতে পারেন। সবাইকে হাসি মুখে আপ্যায়ন জানাবেন। ক্রেতারা অনেক ধরনের প্রশ্ন করতে পারে। আপনাকে তার সন্তুষ্টির জন্য হাসি-মুখে সকল প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। গ্রাহকের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ আচরন করতে হবে। তবেই তো আপনার কোম্পানি দিন দিন উন্নতির দিকে যাবে।

১৩। প্রশিক্ষণ প্রদান করুন
আপনার কোম্পানিকে বড় করার জন্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ প্রদান করুন। কর্মীদের সঠিকভাবে প্রশিক্ষণ প্রদান করে কোম্পানির বিক্রয় বৃদ্ধি করতে পারেন। আর একটি কোম্পানির বিক্রয় বৃদ্ধি হলে এমনিতেই কোম্পানি সামনের দিকে অগ্রসর হবে।

১৪। নেতিবাচক দিক এড়িয়ে চলুন
অনেক মানুষ আছে যারা নেতিবাচক কথা বলে। অনেক সময় মিডিয়া আপনার কোম্পানির নামে নেতিবাচক কথা বলতে পারে। কিন্তু এসব দিক এড়িয়ে চললে আপনার জন্য ভালো। আপনি যদি এরকম কথায় প্রভাবিত হয়ে থাকেন তবে এখনই এ প্রভাব থেকে বেরিয়ে আসুন। নিজের মত করে আপনার প্রতিষ্ঠানকে চালিয়ে নিয়ে যান। আপনার নিজের কাছে যখন মনে হবে আর চালিয়ে নেয়া সম্ভব না ঠিক তখনই থামেন। অন্যের কথায় কখনো আপনার প্রতিষ্ঠানকে বন্ধ করা যাবে না।

এভাবেই আপনি আপনার কোম্পানিকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারবেন। একসময় অনেক বড় কোম্পানিতে পরিণত হবে যদি আপনি সঠিক নিয়ম অনুসরন করুন।

Afrin Mukti

Afrin Mukti

Afrin complete her MBA in marketing, beside this she love music and read lots of books. She also write about online marketing, Bangladesh fashion trend and anything that interested her. She is very dynamic and details oriented.
Afrin Mukti

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY