ইনবাউন্ড এবং আউটবাউন্ড মার্কেটিং কি?

0
530
ইনবাউন্ড এবং আউটবাউন্ড মার্কেটিং কি?
5 (100%) 3 votes

ইনবাউন্ড মার্কেটিং

ইনবাউন্ড মার্কেটিং তুলনামুলক নতুন শব্দ। উইকিপিডিয়ায় বলা হয়েছে ইনবাউন্ড মার্কেটিং হচ্ছে একধরনের পরিকল্পনা যার মাধ্যমে ক্রেতা খুজে বের করা যায়। বিষয়টিকে খুব নতুন মনে হচ্ছে না নিশ্চয়ই। খবরের কাগজ, টিভি, ইন্টারনেট ইত্যাদিতে বিজ্ঞাপন দেয়া হয় ক্রেতা খোজার জন্যই। তারপরও বর্তমানে ইনবাউন্ড মার্কেটিং নতুন মাত্রায় পৌছেছে এটাও স্বীকার করবেন।

এটা সাধারণত এসইও রিচ করার একটা কৌশলও বটে। আপনি কখন কোন ওয়েব পেজে ভিজিট করেন, কোথায় ক্লিক করেন, কোন ধরনের সাইট ব্যবহার করেন এসব তথ্য জমা হয় আপনার কম্পিউটারে (কুকি)। গুগল সেটা দেখে আপনার পছন্দ সম্পর্কে ধারনা পায় তারপর তার সাথে মিল রেখে বিজ্ঞাপন দেয়। এক্ষেত্রে অন্য সাইটে আপনি আপনার সাইটের লিংক ডেভলপ করবেন আর সেই লিংক থেকে আপনার ভিজিটর আসবে এটাই ইনবাউন্ড লিংক।

একটা উদাহরন দেখুন। আপনি কখন কোন ওয়েব পেজে ভিজিট করেন, কোথায় ক্লিক করেন, কোন ধরনের সাইট ব্যবহার করেন এসব তথ্য জমা হয় আপনার কম্পিউটারে (কুকি)। গুগল সেটা দেখে আপনার পছন্দ সম্পর্কে ধারনা পায় তারপর তার সাথে মিল রেখে বিজ্ঞাপন পাঠায়। আপনি নিশ্চয়ই লক্ষ্য করেছেন আপনার ভিজিটের সময় যে এডসেন্স (এড চয়েজ) বিজ্ঞাপন দেখা যায় সেগুলো নিয়েই আপনি বেশি আগ্রহি।

in-out-2

ইনবাউন্ড মার্কেটিং এর মুল বিষয় ৩টি। কন্টেন্ট মার্কেটিং, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এবং সোস্যাল মিডিয়া মার্কেটিং।

কন্টেন্ট মার্কেটিং কে বলতে পারেন লিফলেটের মত কিছু। সাধারনভাবে একটি বিজ্ঞাপনের লিফলেট কারো হাতে দিলে তিনি ততটা গুরুত্বপুর্র মনে করেন না। কিন্তু যদি শুধু বিজ্ঞাপনের বদলে প্রয়োজনীয় তথ্য দেয়া হয় তাহলে তিনি সেটা রেখে দেন। এভাবেই আপনি নানাধরনের প্রয়োজনীয় বিষয় পৌছে দিতে পারেন অন্যের কাছে। সেইসাথে প্রচার। বর্তমানে ইন্টারনেটের মাধ্যমে সেটা করা তুলনামুলক সহজ। ইন্টারনেটে বিনামুল্যের শিক্ষামুলক বই, টিউটোরিয়াল, ভিডিও, গেম ইত্যাদি করা হয় একারনেই। লক্ষ্য করলে দেখবেন ভিডিও গেমের মধ্যেই কোন কোম্পানীর বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন সম্পর্কে এই সাইটে বেশকিছু লেখা রয়েছে। নতুন করে এখানে উল্লেখ করা হচ্ছে না।

সোস্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ব্যবহার করেও আপনি ব্যবসার প্রচার করতে পারেন। হয়ত লক্ষ্য করেছেন প্রায় প্রতিটি বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ফেসবুক-টুইটার পেজ রয়েছে। কারন একটিই, প্রচার বাড়ানো।

আপনি যে ব্যবসাই করুন, ইনবাউন্ড প্রচারে সাফল্য পেতে পারেন। যদি ইন্টারনেট ভিত্তিক কাজ করেন তাহলে যোগাযোগের সমস্ত কাজই হতে পারে এর মাধ্যমে।
ইন্টারনেট ভিত্তিক ইনবাউন্ড মার্কেটিং এর সবচেয়ে বড় সুবিধে হচ্ছে, আপনি খুব সহজে অনেক বেশি মানুষের কাঝে তথ্য প্রচার করতে পারেন।

ইনবাউন্ড লিংক হলো অন্য সাইটে থাকা আপনার সাইটের লিংক যেটাতে ক্লিক করে ঐ সব সাইট থেকে আপনার সাইটে ভিজিটর আসে। তাহলে এই সহজ কাজটি করেও আপনার সাইট ভিজিটর বাড়াতে পারেন। যা আপনার প্রমোশন প্লানেরই একটা অংশ। তবে একটু কৌশলী হবেন। সাইট লিংক দেয়ার সময় একেক জায়গায় একেকভাবে হাইপার লিংক দেবেন। যাতে গুগল আপনাকে ভিন্ন ভিন্নভাবে ফাইন্ড করতে পারবে।

in-out-1

আউটবাউন্ড মার্কেটিং

আউটবাউন্ড লিংক মানে হচ্ছে আপনার ওয়েবসাইট থেকে অন্য ওয়েবসাইটকে লিংক দেয়া। এক্সটার্নাল লিংক হিসেবেও এটা পরিচিত। যে সবসময়ই অন্য ওয়েবসাইটকে আউটবাউন্ড লিংক দিন তা নয়। শুধুমাত্র যখন প্রয়োজন বা যুক্তিসংগত তখন দিন, তাতেই হয়ে যাবে। আপনি কোনো লেখায় সোর্স হিসেবে দিতে পারেন। কোনো তথ্য শেয়ার করে তার প্রমাণ হিসেবে দিতে পারেন। বা সিমিলার তথ্য বা ইমেজের জন্য দিতে পারেন।এতে করে আউটবাউন্ড লিংক দেয়ার মাধ্যমে আপনি নিজেকেই আরও শক্তিশালী করছেন। অন্য সাইটের সাথে আপনার সম্পর্ক আপনার সাইটেকে ব্যাপক পরিচিতি ও কানেকটিভিটি এনে দেবে।

সার্চ ইঞ্জিন কে আপনার ওয়েবসাইট সম্পর্কে আরও ভালো ধারণা দিতে পারবেন। বিভিন্ন ভাবে ভিজিটর যাওয়া আসার মাধ্যমে এ ধরনের বিষয় বিচিত্রতা তৈরী হবে। যা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এর ক্ষেত্রে সহায়ক হবে বৈকি। এছাড়া আপনার ওয়েবসাইটকে কিছুটা প্রাণ দিবে এইসব লিংক। বিভিন্ন ভাবে সার্চ ইঞ্জিনের সাথে সম্পর্ক বাড়িয়ে সমৃদ্ধ সাইট হিসেবে পরিচিত করাবে। আর আপনি নিশ্চয় এমনটা চাইবেন।

Afrin Mukti

Afrin Mukti

Afrin complete her MBA in marketing, beside this she love music and read lots of books. She also write about online marketing, Bangladesh fashion trend and anything that interested her. She is very dynamic and details oriented.
Afrin Mukti

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY