কিভাবে আপনি একজন স্টাইলিশ মেয়ে হবেন?

0
456
কিভাবে আপনি একজন স্টাইলিশ মেয়ে হবেন?
5 (100%) 6 votes

স্টাইলিশ মানে এই নয় যে আপনাকে বর্তমান যুগের যে ফ্যাশনগুলো আছে তাই অনুসরণ করতে হবে। অতিরিক্ত স্টাইলিশ পোশাক সাধারন পোশাকের বিপরীত। স্টাইলিশ পোশাক বলতে আপনার পোশাকের মাঝে অতিরিক্ত কোন ডিজাইন করা, এছাড়া আপনার পোশাকটির সাথে ম্যাচ করে অনেক প্রসাধনী ও গহনা ব্যবহার করা। যারা নিজের স্টাইল পরিবর্তন করতে চায় তাদের জন্য নিম্নে কিছু টিপস দেওয়া হল-

ধাপ-১ ফ্যাশন গবেষণা করুন

১। আপনার ফ্যাশন আইকন করুন
এটি একটি দুর্দান্ত উপায়। আপনার নিজের ব্যক্তিগত শৈলী বিকাশ অন্যদের শৈলী অন্বেষণ করার জন্য ব্যবহার করা হয়। এই কমান্ডের সাহায্যে আপনাকে সাহায্য করবে আপনি কেন নিজকে পরিবর্তন করতে চাচ্ছেন এবং কিভাবে করবেন? আপনি কি প্রেমে পড়েছেন, আপনি কি ধরনের ফ্যাশন পছন্দ করেন এবং কিভাবে পরিবর্তন করতে চাচ্ছেন? আপনি ফ্যাশনের উপর বিভিন্ন ধরনের ব্লগ পড়ুন, ম্যাগাজিন পড়ুন এবং বিভিন্ন মডেলদের অনুসরণ করুন। মডেলরা কিভাবে পোশাক পড়ে তাদের সাজসজ্জা সবকিছু আপনি দেখতে পারেন।

২। একটি ফ্যাশন স্ক্র্যাপবুক তৈরি করুন

How to Be a Stylish Girl

একটি Clothia অথবা একটি শারীরিক স্ক্র্যাপবুক তৈরি করতে পারেন। যেটিতে আপনি প্রিন্ট আউট এবং পত্রিকা কাট আউট পেস্ট ব্যবহার করতে পারেন। এছাড়া আপনি অনলাইন থেকেও পোশাক বাছাই করতে পারেন। বিভিন্ন ঋতুভেদে পত্রিকা, অনলাইনগুলো তাদের ফ্যাশন স্টাইল ছাপিয়ে থাকে। আপনি সেগুলো সংগ্রহ করে রাখতে পারেন।

৩। বিবেচনা করুন আপনি কে?

How to Be a Stylish Girl

আপনি ফ্যাশন বিবেচনা করার আগে ভাবুন আপনি কি করেন এবং আপনার সম্পর্কে। আপনি কোন পেশায় নিয়োজিত আছেন। আপনার বয়স বিবেচনা করুন কোন ফ্যাশন নির্ধারণ করার পূর্বে। আপানার যদি ২০ বছর হয় তখন আপনি এক ধরনের ফ্যাশন নির্ধারণ করতে পারবেন। আর যদি ৫০ ঊর্ধ্ব হয় তখন এক ধরনের ফ্যাশন হবে।

৪। কার্বন কপি করবেন না

How to Be a Stylish Girl

আপনি কোন মডেল বা যে কাউকেই ফ্যাশন আইকন হিসেবে মানতেই পারেন। কিন্তু আপনি কখনই তাদের পুরো কপি করবেন না যা আপনাকে আরও বেমানান লাগে। যেমন আপনি যাকে ফলো করছেন সে যে কানের দুল পড়লো আপনিও তাই পড়লেন। সে মিনি কামিজ পড়লো আপনিও। এধরণের ফ্যাশন আপনাকে আরও বিরক্তিকর প্রশ্নের সম্মুখীন করতে পারে।

৫। আপনি কতটা মানানসই
আপনি যখন কোন পত্রিকায় বা অনলাইনে কোন মডেলের ছবি দেখেন তখন দেখবেন তাদের সাথে কতটা মানাসই। শরীরের ফিটনেসের সাথে মিল রেখে প্রত্যেকটি পোশাক পরিধান করে থাকে। যেমন একজন মোটা মানুষের ফ্যাশন আর একজন চিকন মানুষের ফ্যাশনের মাঝে যথেষ্ট তফাৎ আছে।

৬। আত্মবিশ্বাস

How to Be a Stylish Girl

আপনি এমন পোশাক পড়ুন যে পোশাকটি পড়ে সবার সামনে নিজের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পাবে। যে পোশাক পড়ে কমফোর্টেবল হবেন সে পোশাকটি পড়বেন। আপনার মনে হবে আপনি সবার চেয়ে সেরা আছেন। যখন আপনি কোন পোশাক পড়ে মন থেকে সুখি অনুভব করবেন সেই পোশাকটি বাছাই করার চেষ্টা করবেন। আর যে ফ্যাশন আপনাকে আরও অস্বস্তিতে ফেলতে পারে মনে করবেন এমন ফ্যাশন বাছাই করবেন না।

ধাপ-২ একটি স্টাইলিশ পোশাক নির্মাণের প্রণালী

১। স্টাইলিশ পোশাক নির্মাণ
আপনার ফ্যাশনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অংশ হল আপনার পোশাক। আপনি একটি তালিকা তৈরি করুন আপনার পোশাকটি নির্মাণের পূর্বে। তাহলে আপনার জন্য সুবিধা হবে। আপনার তালিকাটি হতে পারে-

How to Be a Stylish Girl

  • স্লিম-লেগড কালো পায়জামা
  • গাঢ় নীল চর্মসার জিন্স
  • একটি নিরপেক্ষ রং পেন্সিল স্কার্ট (কালো সবচেয়ে জনপ্রিয়)
  • যাই হোক না কেন আপনার শরীরের ধরণের জন্য অপেক্ষা করছেন
  • একটি সাদা, লম্বা হাতা বাটন ডাউন শার্ট
  • একটি নরম ক্রু ঘাড় সোয়েটার একটি ভিন্ন রং এর শাল (কাশ্মীরী শাল জনপ্রিয় কিন্তু ব্যয়বহুল)
  • ভি-নেক টিশার্ট সাদা, ধূসর বা কালো মত
  • কালো বা বাদামী গোড়ালি বুট
  • একটি কালো ব্লেজার
  • একটি বেইজ রঙ বা কালো ট্রেঞ্চ কোট
  • কালো বা নিরপেক্ষ রঙ্গিন মোটরসাইকেল জ্যাকেট ইত্যাদি।

২। আপনার প্রতিদিনের রুটিন ফলো করুন

How to Be a Stylish Girl

আপনি যদি প্রতিদিনের জন্য আপনার ফ্যাশন ট্রেন্ড এর উপর একটি রুটিন করে রাখেন তাহলে আপনার জন্য অনেক সুবিধা হবে। আপনি যদি শিক্ষিকা হন তাহলে আপনার জন্য রুটিন করে রাখুন আপনি কি ধরনের ফ্যাশন করবেন। আপনি যদি বিমানবালা হন তাহলে আপনার প্রতিদিনের জুতো, পোশাক, কানের দুল গুছিয়ে রাখবেন। এছাড়াও আপনি কি ধরনের প্রসাধনী ব্যবহার করবেন।

৩। আপনার পোশাক, গহনা, প্রসাধনী রাখার স্থান
আপনি যদি সবকিছু গুছিয়ে রাখেন যেমন আপনার পোশাকগুলো আপনি এক জায়গায় গুছিয়ে রাখলেন, আপনার প্রসাধনীগুলো কোন বাক্সে রাখলেন এবং আপনার গহনাগুলো গহনার বাক্সে রাখলেন। এতে আপনার জন্যই সুবিধা হবে।

৪। সানগ্লাস পড়ুন

How to Be a Stylish Girl

আপনার পোশাকের সাথে মিল রেখে আপনি সানগ্লাস ব্যবহার করতে পারেন। সানগ্লাস পড়লে আপনার ফ্যাশন স্টাইল আরও বাড়িয়ে দিতে পারে।

ধাপ-৩ কিছু আলাদা বৈশিষ্ট্য রাখুন

১। প্রাকৃতিক থাকার চেষ্টা করুন

How to Be a Stylish Girl

সবসময় খুব জাঁকজমক পোশাক পরলেই ফ্যাশন বলা হয় না। আপনি এমন কিছু কালার পছন্দ করুন যেটায় আপনাকে এমনিতেই অনেক সুন্দর দেখায়।

২। নিজের ত্বকের যত্ন নিন
শুধুমাত্র আপনার ফ্যাশন সচেতন বলে আপনার পোশাকই বুঝায় না। আপনাকে সর্বোপরি সুন্দর দেখাতে হবে। আপনি নিয়মিত আপনার ত্বকের পরিচর্যা করুন যাতে আপনাকে আরও আকর্ষণীয় মনে হয়। আপনার ত্বক আপনার সৌন্দর্যকে বৃদ্ধি করে। আপনি যে ফ্যাশনই করুন না কেন আপনার ত্বক এবং চেহারায় যদি ক্লান্তিভাব থাকে তাহলে আপনাকে সুন্দর লাগবে না।

৩। চুল পরিচর্যা করুন
বর্তমান যুগের মেয়েরা চুলের ব্যাপারে অনেক সচেতন। চুলের বিভিন্ন স্টাইলের মাধ্যমে নিজেকে আরও ফ্যাশনেবল করে তুলতে পারে। আপনি চুলের জন্য আপনার পোশাকের সাথে ম্যাচ করে বিভিন্ন ধরনের ক্লিপ, ব্যান্ড ব্যবহার করতে পারেন।

৪। ফ্যাশন এর ক্ষেত্রে ভাববেন আপনি কি করছেন

How to Be a Stylish Girl

আপনি কখনই ভাববেন না আপনার ফ্যাশন নিয়ে অন্যদের নেগেটিভ মন্তব্য। যদি খারাপ কিছু থাকে আপনি তো নিজেকে দেখছেন তাহলে নিজেই পরিবর্তন করতে পারবেন।

৫। নিশ্চিত করুন যে আপনি সাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন

How to Be a Stylish Girl

আপনি কি পরেন এবং যে পোশাকটি পরেছেন তা পড়ে কি স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছেন। আপনি কি আরামবোধ করছেন ভাবুন। আপনি যদি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন তাহলে আপনার স্টাইল আরও জোরদার হবে। আপনি যদি হিল পড়ে সব জায়গায় স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন তাহলে নিজের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পাবে।

Afrin Mukti

Afrin Mukti

Afrin complete her MBA in marketing, beside this she love music and read lots of books. She also write about online marketing, Bangladesh fashion trend and anything that interested her. She is very dynamic and details oriented.
Afrin Mukti

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY