নিউ ইয়র্ক ট্রিপ? প্যাকিং এর সময় জানতে হবে যে বিষয় গুলো

0
378
নিউ ইয়র্ক ট্রিপ? প্যাকিং এর সময় জানতে হবে যে বিষয় গুলো
5 (100%) 2 votes

নিউ ইয়র্ক সিটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বৃহত্তম শহর। এই শহরটি এক সময় সমগ্র যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ছিল। বর্তমান বিশ্বে নিউ ইয়র্ক প্রধান বাণিজ্যিক, অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক ও শিক্ষা কেন্দ্র। বিশ্বব্যাপী এর রাজনীতি, মিডিয়া, বিনোদন, ফ্যাশনের প্রভাব বিশেষ উল্লেখযোগ্য। এছাড়া ও নিউ ইয়র্কের অন্যতম প্রধান আকর্ষণ বিশ্ববিখ্যাত স্ট্যাচু অফ লিবার্টি । আর তাই প্রতি বছর হাজারো পর্যটক নিউ ইয়র্ক ভ্রমন করে। আপনার ও কি প্লান আছে নিউ ইয়র্ক যাওয়ার? কিন্তু নিউ ইয়র্ক এর আবহাওয়ার সাথে তো আমাদের দেশের আবহাওয়ার মিল নেই। প্যাকিং এ কি কি নিবেন? এমন না হয় গরম কালে আপনি সোয়েটার নিয়ে গেছেন আর শীত কালে হাল্কা কাপড়। কিন্তু কি করার? জানবেনই বা কিভাবে যে কোন সময়। ওখানের আবহাওয়া কি রকম। সমস্যা নেই আমি সেই ধারনা দিচ্ছি আপনাদের। এতে আশা করি আপনাদের কোন সমস্যার মুখমুখি হতে হবে না।
এই শহরে বছরে চার ঋতুর যে আনাগোনা তার মধ্যেই লুকিয়ে আছে অপার সৌন্দর্য।

১। সামার ফ্যাশন

নিউ ইয়র্কের গ্রীষ্ম কাল সম্পর্কে জানুন

সামার মানে গ্রীষ্ম কাল। গ্রীষ্ম কাল হলো বছরের উষ্ণতম কাল, যা পৃথিবীর উত্তর গোলার্ধে সাধারণত জুন, জুলাই এবং আগস্ট জুড়ে অবস্থান করে। তেমনি নিউ ইয়র্কেও গ্রিষ্ম কাল মানেই হলো গরম, গরম আর গরম। শুধু দিনেই নয় রাতেও তাপমাত্রা ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা তার বেশি থাকে। এছাড়া ও নিউ ইয়র্ক খুব ই আদ্র থাকে। এর মানে চটচটে বায়ু।
এছাড়া মাঝে মধ্যে ঝর বৃষ্টি ও হয়ে থাকে।

সঠিক পোশাক বাছাই করুন- ছেলেদের জন্য

গরমের উপযোগী পোশাক বলতে প্রথমেই আসে কটন বা সুতি কাপড়ের কথা। আজকাল ফ্যাশন হাউজগুলোতে ও ছেলেদের জন্য সুতি কাপড়ের বিভিন্ন ধরনের শার্ট পাওয়া যায়। গরমের দিনে বেছে নিন হাফহাতা পলো শার্ট। কটনবেজ হলেই সবচেয়ে ভালো হবে আপনার পছন্দের পলো শার্টটি। সেগুলোই নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করুন। এসব শার্ট ক্যাজুয়াল হিসেবেও যেমন ব্যবহার করা যাবে, তেমনি ফর্মাল হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। এই শার্টগুলো গরমে আরামের পাশাপাশি ফ্যাশন হিসেবেও চমৎকার। সুতি ভয়েল কাপড়ের শার্ট এই মৌসুমে খুবই আরামদায়ক। রঙ হিসেবে গরমে বেছে নিতে পারেন নীল, ধূসর, সাদা, অফহোয়াইট, মেরুন প্রভৃতি। তবে হালকা রঙই গরমে বেশি মানানসই। কারন হাল্কা রঙের কাপড়ে গরম কম লাগে। এ ছাড়া গরমের আরো একটি পোশাক টি শার্ট। মূলত সুতি কাপড়ে তৈরী টি-শার্ট বাছাই করে নিয়ে যান।

সঠিক পোশাক বাছাই করুন- মেয়েদের জন্য

মেয়েদের ও যথাসম্ভব সুতি কাপড় বাছাই করতে হবে। স্লিভলেস হালকা ধরণের ফতুয়া, টি-শার্ট, থ্রি-পিস, জিন্স, সুতির স্কার্ট টপের সেট ইত্যাদি নিতে পারেন। একটা সিঙ্গেল কামিজ, সঙ্গে আপনার পছন্দসই ওড়না বা সালোয়ার পরে নিতে পারেন, যখন যেটা ভালো লাগে। যারা শাড়ি পরে অভ্যস্ত এক্ষেত্রে তারা সিল্ক ও এমব্রয়ডারি করা সুতি শাড়িকেই পছন্দ করুন। মেয়েরা ও হাল্কা রঙ বাছাই করুন। তবে একই সাথে সেটি যেন স্টাইলিশ ও ট্রেন্ডি হয়।

কিছু এক্সট্রা কাপড় নিয়ে নিন

যেহেতু গ্রীষ্ম কাল সেহেতু হাল্কা উজ্জ্বল রঙের কিছু কাপড় নিয়ে নিন। একটি সান গ্লাস, একটা টুপি আপনাকে নিউ ইয়র্ক এর পরিবেশের সাথে মানিয়ে নিতে সহায়তা করবে।

newyork-3

একটি হালকা জ্যাকেট এবং কিছু এক্সেসরিস নিয়ে নিবেন

এখন হয়তো ভাবছেন একটু আগেই তো বললাম যে ওখানে গীষ্ম কালে গরম। সুতির কাপর ব্যবহার করতে। এখনই আবার বলছি হাল্কা জ্যাকেট নিয়ে নিতে। হ্যা কারন আছে। সেখানে হাল্কা ঝড় বৃষ্টি ও হয় ওই সময়। যদিও সাধারণত উষ্ণ থাকে তবুও একটু শীতল অনুভব করতে পারেন, বিশেষ করে একটি বজ্রঝড়ের পরে। তাই সাথে করে হালকা জ্যাকেট নিয়ে যান। আর এক্সেসরিস এর মধ্যে আপনি দিনে পরতে একটি টুপি, গ্রীষ্মের সূর্য থেকে নিরাপদ থাকবেন। চুড়ি ও হাল্কা নেকলেস আপনাকে করে তুলবে স্টাইলিশ।

২। হেমন্ত কালের ফ্যাশন

জেনে নিন নিউ ইয়র্কের হেমন্ত কাল সম্পর্কে

গ্রিষ্মের পর হেমন্ত। বছর এর সেপ্টেম্বর, অক্টোবর ও নভেম্বর মাসে নিউ ইয়র্ক সিটি মধ্যে সবচেয়ে মনোরম মাস। কারন এই মাসে প্রকৃতিতে হেমন্ত ঋতু অবস্থান করে। সুর্য আকাশে চকমক করে কিন্তু তাপমাত্রা কমে যায়। নভেম্বরে দিনে অল্প ঠান্ডা থাকলে ও রাতে খুব শিতল আবহাওয়া থাকে।

ঠান্ডা আবহাওয়া মাথায় রেখে প্যাকিং করুন

এই সময়ে হালকা লম্বা বা কোয়ার্টার হাতা বাটন ডাউন শার্ট এবং প্যান্ট ব্যাবহার করতে পারেন গাঢ় রং এর। বছরের এই সময়ে গাঢ় রঙের কাপড় ভাল মানাবে।

মেয়েরা- সোয়েটার, একটু আঁটসাঁট পোশাক, বুট, এবং একটি জ্যাকেট নিতে পারেন। এছাড়াও আপনি গাঢ় রঙের শার্ট ও স্কার্ফ ব্যাবহার করতে পারেন।

ছেলেরা- গাঢ় রং যেমন, মেরুন , নেভি ব্লু, কালো ইত্যাদির মধ্যে ফ্যাশনেবল প্যান্ট হলে ভাল হয় সাথে ভাল মানের সোয়েটার বা জ্যাকেট।

গ্লাভস ও স্কার্ফ সাথে নিতে ভুলবেন না যেন

হেমন্ত কালে সকালে ও সন্ধায় ঠান্ডার পরিমান বেড়ে যায়। তাই সেখানে গ্লাভস ও স্কার্ফ আপনার কাজে দিবে। সাথে টুপি নিতে পারেন।

newyork-6

৩। শীতের ফ্যাশন

নিউ ইয়র্কের শীত কাল সম্পর্কে জানুন

শীতকালে আপনি খুব ঠান্ডা ও এক ধরনের স্যাঁতসেঁতে ভাব পাবেন। ডিসেম্বর, জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারী জুড়েই পাবেন বরফে ঢাকা রাস্তা। বাতাস ও হয়ে উঠে স্যাঁতসেঁতে।

গরম কাপড় পরেন

জি। লং হাতা শার্ট, সোয়েটার এবং প্যান্ট শীতকালে নিউ ইয়র্কে আবশ্যক। উলের টুপি ও গ্লাভস সাথে রাখুন। গাঢ় রং এবং ভারী ফেব্রিক এর কাপড় কিনে নিন। কালো রঙ নিউ ইয়র্কের শীতের এক নম্বর রঙ। তাই কালো রঙের কাপড় পরিধান করার চেষ্টা করুন। একটি শীতকালীন কোট বছরের এই সময় অতি আবশ্যক।

তুষার পাতের জন্য প্রস্তুত হোন

তুষারপাত দেখতে কার না ভালো লাগে? অনেকে শখ করে তুষার পাত উপভোগও করেন। যেহেতু আমাদের বাংলাদেশে তুষার পাত হয় না সেহেতু আপনার একটু কষ্ট হতে পারে বলে ধরে নেয়া যায়। তাই আপনাকে পর্যাপ্ত পরিমান গরম কাপর নিয়ে যেতে হবে। গ্লাভস, স্কার্ফ এবং একটি টুপিও আবশ্যক হবে যখন তুষার বা শিলাবৃষ্টি নেমে আসা শুরু হয়। সেক্ষত্রে ওয়াটারপ্রুফ জ্যাকেট ও নেয়া যেতে পারে যদিও এটি কোনা স্টাইলিশ জিনিস নয়। তবুও আপনাকে সেটি সাথে রাখতে হবে।

শীতের জুতা নিতে ভুলবেন না যেন

কাপড় তো নেয়া হলো কিন্তু পায়ে কেমন জুতা পরবেন সেই প্রশ্নটি রয়েই গেল। হ্যাঁ বাজারে শীতের বুট পাওয়া যায় যেটা পরলে পায়ে গরম অনুভুত হয়। সেগুলো অতি অবশ্যই আপনাকে নিয়ে যেতে হবে।

৪। বসন্তের ফ্যাশন

নিউ ইয়র্কের বসন্ত কাল সম্পর্কে জানুন

মার্চ, এপ্রিল ও মে মাস জুড়ে বসন্ত কাল দৃশ্যমান হতে পারে কিন্তু শীতের আমেজ তখন ও প্রকৃতিতে থাকে। তখনও আপনার ঠাণ্ডা এবং ভেজা মুহূর্ত অনুভব হতে পারে। কিন্তু বসন্ত ঋতু জুড়ে ও সন্ধ্যায় বেশ ঠান্ডা পেতে পারেন। উভয় উষ্ণ এবং ঠান্ডা আবহাওয়ার জন্য পরিকল্পনা করুন। হ্যাঁ ঠিকই শুনেছেন। এই সময়টায় গরম ঠান্ডা দুইটাই অনুভুত হবে। তাই যেমন সোয়েটার সাথে রাখবেন তেমনি হাল্কা কাপড়ও নিয়ে যাবেন।

newyork-4

এতক্ষন তো দেখলাম ৪ ঋতু তে কেমন কাপড় চোপড় নিবেন। এখন বাকি ফ্যাশন ও প্রয়োজনীয় জিনিষ গুলোতেও একটু চোখ বুলিয়ে নিন।

  • নৈশপ্রমোদ উপভোগ করার জন্য পস্তুত থাকুন

    নিউ ইয়র্কের ক্লাব গুলোতে পোষাক কোড মোটামুটি একই রকম হয়। কিন্তু সমস্যা যে প্রতিটি এলাকায় তাদের নিজস্ব স্বতন্ত্র স্টাইল রয়েছে। সবচেয়ে প্রচলিত হলো ওয়েস্টার্ন ড্রেস এবং হিল পরিধান করা আর পুরুষদের পোষাক প্যান্ট, হার্ড রঙ্গিন বোতাম ডাউন শার্ট এবং একটি ব্লেজার। অবশ্য আমাদের দেশের কালচার এ আমরা অনেকেই ওয়েস্টার্ন ড্রেস কোড মানতে পারব না তাই কোন ক্লাবে পৌঁছানোর আগে সবসময় ক্লাবের ওয়েবসাইট ভিজিট করে নিবেন। আপনি যদি ক্লাবে নাও যান তাও আপনি আপনার পছন্দসই ড্রেস পরে কোন ডিনার বা লং ড্রাইভ এ যেতে পারেন।

  • দিনে আরামদায়ক জুতা পরেন

    যেহেতু আপনি ভ্রমনে গিয়েছেন সেহেতু আপনার ভ্রমন এর সব জায়গার উপর হাঁটা হবে এটাই স্বাভাবিক। অন্ততপক্ষে, আরামদায়ক জুতা পরে হাঁটলে আপনার ভ্রমনে কষ্ট হবে না।

  • পর্যাপ্ত পরিমান টাকা নিয়ে যান

    প্রতিটি ভ্রমন ই ব্যয়বহুল। সুতরাং নিউ ইয়র্ক ভ্রমন ও আপনার জন্য ব্যয়বহুল হতে যাচ্ছে। কিন্তু ব্যয় এর পরিমানটা আপনি কি পরিদর্শন করছেন তার উপর নির্ভর করে। আপনি হয়তো কম জায়গায় ঘুরেছেন অথবা বেশি। আপনি $৩ দিয়েও একটি পিজ্জা কিনতে পারেন আবার হতে পারে আপনি নিউ ইয়র্ক সিটির একটি ফুডি রেস্তোরাঁয় $৩০০ ড্রপ করে ফেলেছেন। তাই পর্যাপ্ত পরিমান টাকা হাতে নিয়ে যান।

  • newyork-2

  • ক্যামেরা নিয়ে যান

    নিউ ইয়র্কে গেছেন আর ক্যামেরা সাথে নিতে ভুলে গেছেন। কেমন হবে ভাবেন তো একটু। সবচেয়ে বড় আকর্ষন স্টাচু অফ লিবার্টি। তার ছবিও তুলে আনতে পারছেন না। নিজের উপর রাগ উঠবে অবশ্যই। তাই মনে করে ক্যামেরা টি সাথে নিয়ে নিন।

  • রকিং সান গ্লাস নিয়ে যান

    নিউ ইয়র্কে যেয়ে দেখুন বেশির ভাগ নিউ ইয়র্কার রাই সানগ্লাস পরে। আপনারটা নিতে তাই ভুলবেন না যেন।

  • ব্যাগ ক্যারি করুন

    বেশির ভাগ নিউ ইয়র্ক এর মহিলা রাই ব্যাগ ক্যারি করে। আপনার ও যদি ছোট খাটো জিনিষ নিতে হয় তাহলে একটা বড় ব্যাগ ক্যারি করতে পারেন।

  • একটা ছাতা প্যাক করে নিন

    এটি হেমন্ত এবং বসন্ত মাসের জন্য বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু এটা সারাবছরই ব্যাবহার করা যায়। সামারে ঝড়বৃষ্টি এবং শীতকালে শিলাবৃষ্টি ও তুষারপাত এর সময় প্রয়োজন পরবে।

  • নিউ ইয়র্ক সিটির একটা ম্যাপ কিনে নিন

    নতুন একটি দেশে যাচ্ছেন। আপনি যে কোন রাস্তা চিনবেন না এটাই স্বাভাবিক। তাহলে কি করবেন। হ্যাঁ উপায় একটা আছে। তা হলো নিউ ইয়র্ক সিটির একটা ম্যাপ কিনে নিন। না আপনাকে সেটি সারাদিন ক্যারি ও করতে হবে না। কোথায় যাচ্ছেন তা আগে প্লান করে স্টাডি করে নিন। ব্যাস সমস্যা সমাধান।

  • শপিং করার প্লান থাকলে স্যুটকেস এ জায়গা খালি রাখুন

    যদি আপনি ফ্যাশন লাভার হয়ে থাকেন তাহলে আপনি সঠিক শহরেই যাচ্ছেন। আপনি সেখানে ফ্যাশন্যাবল অনেক কিছুই পাবেন। তাই যাওয়ার সময় স্যুটকেস এ কিছু জায়গা খালি রাখুন। যেন আপনার কেনা কাটা গুলো আনতে সমস্যা না হয়।

  • newyork-5

  • আপনার নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসগুলোর কথা মনে রাখুন

    আমরা যখন কোথাও বেড়াতে যাই সব কিছু মনে রাখলেও ভুলে যাই আমাদের নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস গুলোর কথা। যেমন – মোজা, চিরুনি, টুথ ব্রাশ, টুথ পেস্ট, ফোন ও ক্যামেরা চার্জার, ঔষধ বা সানস্ক্রিন এর মত অন্যান্য জিনিস যেগুলো নিত্য দিনে আপনাদের প্রয়োজন। তাই এই জিনিস গুলো মনে করে ব্যাগ এ রাখবেন।

সর্বশেষে কিছু ভ্রমন টিপস

  • সময়মতো বিমানবন্দরে পৌঁছান।
  • অপ্রয়োজনীয় জিনিস ঠেসে ভরে লাগেজ বেশি ভারি করবেন না।
  • বিমান কর্মীদের সাথে ভালো আচরণ করুন।
  • ভ্রমনের আগের দিন পাসপোর্ট, টিকিট ইত্যাদি প্রয়োজনীয় জিনিষ ছোট্ট হ্যাণ্ড ব্যাগে করে হাতের সামনে রাখুন।
  • অযথা টয়লেটে বেশি সময় ব্যয় করবেন না। কারণ অন্য যাত্রীর হয়তো জরুরী প্রয়োজন থাকতে পারে। কমোডে কিছু ফেলবেন না। টয়লেট ব্যবহারের পর অবশ্যই ফ্লাশ করুন। কমোডের পেছনে ব্যবহারবিধি চিহ্নসহ লেখা থাকে। ভুলেও টয়লেটে ধুমপান করবেন না। বিমানের টয়লেট এয়ারটাইট। তাই সিগারেটের দুর্গন্ধ অন্যদের জন্য অস্বস্তির কারণ হতে পারে।
    আশা করি আর্টিকেলটি আপনাদের ভ্রমনে সহায়তা করবে।
Jannatul Jarin

Jannatul Jarin

Jannatul Jarin is very friendly person and she completed her B.B.A from Daffodil International University in Marketing Major. Besides She was very conscious about fashion trend and beauty. She likes to smile herself and make laugh to others. She also write about online marketing. She is Self-Dependent, hard working and focused.
Jannatul Jarin

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY