নিজের প্রতি আস্থা বৃদ্ধির উপায়

0
393
নিজের প্রতি আস্থা বৃদ্ধির উপায়
4.3 (86.67%) 6 votes

ভাবছেন কিভাবে সম্ভব? সেটা হতে পারে একটি সম্ভাবনাময় পেশা সাক্ষাৎকার, প্রথম ডেট বা সভার জন্য নিজের সম্পর্কে একটি ভাল ধারণা থাকা। প্রায় প্রত্যেক পরিস্থিতির জন্য নিজের উপর কনফিডেন্স রাখতে হবে। একটি ভাল ধারণা আপনি যা অনুভব করছেন তার মধ্যে একটি বিশাল পার্থক্য গড়ে দিতে পারে। কারন আপনি ভাবছেন এক রকম কিন্তু পরিবেশ পরিস্থিতির সম্মুখীন হলে আপনার সকল ধারনা পালটে যেতে পারে। তাই নিজের সম্পর্কে কোন কাজ করার আগে ভালো ধারনা রাখুন। কোন কাজ করার আগেই ভয় পাবেন না এবং কোন কাজ শেষ করার আগেই পিছু পা হবেন না। নিজের উপর আত্মসচেতনতা বাড়ান। এমন অনেক কাজ আছে আপনি সম্ভবনার সাথে শেষ করতে পারেন। এখন আপনাদের সামনে আলোচনা করবো কিভাবে আপনি আপনার আস্থা বাড়াতে পারবেন তার কিছু কৌশল –

১। তাদের দেখুন যারা আপনার ধারনাকে পরিবর্তন করতে পারবে
এই উদাহারনটি অনুসরণ করুন অনুসরণ করুন যেখানে আপনার আত্মোন্নতি বাড়াতে সাহায্য করবে। কোন সন্দেহ নেই আপনি কিছু মানুষের সাথে আপনার পথ পার করেছেন যেখানে আপনার জীবনে কিছু হলেও প্রভাব পড়বে। তাদের প্রতিভা, গুণ বা অনন্য গুণাবলীর মাধ্যমে আপনার কনফিডেন্স বাড়াতে পারবেন। এই মানুষগুলো সম্পর্কে চিন্তা করুন তারা কিভাবে নিজেকে উপরে তুলেছে। আপনার আস্থা আরও বৃদ্ধি পাবে। আপনি নিজের মাঝে এমন কোন বৈশিষ্ট্য খুঁজে পেয়েছেন কি। আপনি পারুন আর না পারুন এই মডেলটি আপনার নিজের সম্পর্কে আস্থা বাড়ানোর জন্য একটি উত্তম মডেল।

২। অন্য মানুষের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখুন
যদি আপনি অন্য কারো চোখ দিয়ে একটি পরিস্থিতি তাকান চেষ্টা করুন তাহলে আপনি সঠিক বুদ্ধিমান এর মত কাজ করছেন এবং এটার উপর ভালো প্রভাব পড়ে কিভাবে আরও অনেক বেশী ঘনিষ্ঠ হবেন।

৩। সিদ্ধান্ত নিন আপনার লক্ষ্য কি?
কেন আপনার সম্পর্কে ভালো ধারনা তৈরি করতে চাচ্ছেন? এটি আপনার কাছে হয়তো অপ্রয়োজনীয় প্রশ্ন হতে পারে। কিন্তু কিছু সময় নিয়ে ভাবুন এর কারন কি হতে পারে কেন আপনি নিজেকে স্মরণীয় করে রাখতে চাইছেন। আপনি যদি কারো সাথে সারাজীবন থাকার পরিকল্পনা করেন তাহলে অবশ্যই আপনাকে তার আস্থা বৃদ্ধি করতে হবে। আপনি এক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নিন কিভাবে আপনি আপনার লক্ষ্য পূরণ করতে পারবেন। আপনি কি করতে চান তা ঠিক করেন এবং আপনি কোথায় নিজেকে নিয়ে যেতে চান তা ঠিক করুন এখনই। তাহলে আপনার আস্থা বৃদ্ধি পাবে।

৪। সমালোচনা এড়িয়ে চলুন
সমাজের মানুষ একেক জন একেক রকম। কারো সাথে আপনার মতামত মিলবে আবার কারো সাথে আপনার মতামত মিলবে না এটাই স্বাভাবিক। আপনি যে সকলেরই প্রিয় পাত্র হবেন এমন কোন কথা নেই। কেউ আপনাকে ভালো চোখে দেখবে আবার কেউ খারাপ চোখে। এমন কারো সাথে চলছেন যার কারনে আপনি নিজেকে ছোট ভাবছেন তাদেরকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করবেন। অনেক মানুষ আছে যারা সবসময় সমালোচনা করে বেড়ায় তাদের কাছ থেকে দূরে থাকুন। তা না হলে অনেকের নেতিবাচক মন্তব্যে আপনি আপনার নিজের আস্থা হারিয়ে ফেলতে পারেন।

৫। ভুল হলে স্বীকার করুন
আপনি যে সবসময় সঠিক এমনটা নয়। আপানরও ভুল হতে পারে। সবারই ভুল হয়। তাই যখন আপনি কোন ভুল করবেন তর্ক না করে তা স্বীকার করুন এবং পরবর্তীতে সঠিক ভাবে কাজটি সম্পন্ন করার চেষ্টা করুন। আপনার ভুল হয়েছে আপনি স্বীকার করলেন তার মানে এই না যে আপনি সকলের সামনে ছোট হয়ে গেছেন। বরং আপনি বুঝতে পারলেন আপনার ভুলগুলো এবং এ থেকে আপনি শিক্ষা নিলেন।

৬। আবেগ নিয়ন্ত্রনে রাখুন
আপনার আবেগ আপনার আস্থার উপর প্রভাব ফেলে। বাস্তবকে বুঝতে শিখুন। আবেগ দিয়ে আপনার জীবন চলবে না। নিজের আত্মবিশ্বাস কে বাড়ানোর জন্য আবেগকে নিয়ন্ত্রণে রাখা জরুরী।

৭। পর্যাপ্ত পরিমান ঘুমান
ঘুম মানুষের মন ও স্বাস্থ্য দুটোই ভালো রাখে। পর্যাপ্ত ঘুম না হলে আপনার মন সারাদিনই অবসাদ থাকতে পারে। আপনার কাজে মন বসবে না। তাই আপনার আস্থা বৃদ্ধির জন্য ঘুম অনেক জরুরী।

৮। পরিবেশ অনুসারে পোশাক পড়ুন
আপনি কোন জাঁকজমক পার্টিতে গেলেন সেখানে সবাই অনেক সুন্দর পোশাক পড়ে আসবে। সেক্ষেত্রে আপনি ঐ অনুষ্ঠানের সাথে সামঞ্জস্য রেখে পোশাক পড়ুন। এক্ষেত্রে আপনি মন থেকে খুশি থাকবেন। পোশাক আপনার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে তুলবে যেকোন পরিবেশে।

৯। প্রতিদিন ব্যায়াম করুন
ব্যায়াম আপনার স্বাস্থ্য এবং সে সাথে আপনাকে ফিট রাখবে। প্রতিদিন ব্যায়াম করলে দেখবেন আপনার শরীর ঝরঝরে লাগছে। কাজে ঠিক মত মন বসবে। আপনি সব কাজ ঠিক মতো করতে পারছেন। আর এতেই আপনার আস্থা বৃদ্ধি পাবে কর্মক্ষেত্রে।

১০। কাজের প্রতি মনযোগী হন
অনেক সময় কাজ করতে করতে এক ঘেয়ামি চলে আসে। একই কাজ করতে কারো ভালো লাগেনা। তবে আপনি যে কাজই করুন মনোযোগ দিয়ে করার চেষ্টা করুন। পারলে একটি রুটিন বানিয়ে নিন কখন কোন কাজ করবেন। দেখবেন আপনার কাজের প্রতি ভালোলাগা সৃষ্টি হবে এবং আস্থা বৃদ্ধি পাবে।

এছাড়া আরও কিছু উপায় আপনার সামনে সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরা হল-

  • কর্মক্ষেত্রে নিয়মিত হন।
  • ইতিবাচক ভাবে আপনার শারীরিক ভাষা প্রকাশ করুন।
  • যখন কেউ আপনার সাথে কথা বলবে তার কথা মনোযোগ দিয়ে শোনার চেষ্টা করবেন।
  • সবসময় সবার সাথে ভালো ভাবে কথা বলুন।
  • নেতিবাচক কথা এড়িয়ে চলার চেষ্টা করুন।
  • যারা আপনার আপনজন তাদের সাথে ভালো সময় কাটান এবং কোথাও ঘুরতে যেতে পারেন।
  • মানসিক চাপ দূর করুন।
  • প্রিয় বন্ধুদের সাথে সময় কাটান।
  • পারিপার্শ্বিক বিষয়ে আপনার জ্ঞান বৃদ্ধি করুন।
  • কোন বড় কাজ করার আগে প্রস্তুতি নিন।
  • নিজের জন্য একজন ভালো সঙ্গী বেছে নিন যাকে আপনি মন থেকে বিশ্বাস করতে পারেন।

এভাবেই আপনি আপনার আস্থা বাড়াতে পারবেন। কখনই নিজেকে ছোট ভাববেন না। জীবনের ব্যর্থতাকে দূর করুন। সব সময় হাসি খুশি থাকুন। আপনার মনের জোর থাকলে আপনি নিজেই আপনার সমাধান করতে পারবেন।

Afrin Mukti

Afrin Mukti

Afrin complete her MBA in marketing, beside this she love music and read lots of books. She also write about online marketing, Bangladesh fashion trend and anything that interested her. She is very dynamic and details oriented.
Afrin Mukti

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY