নিজের ব্যক্তিত্ব ধরে রাখার কিছু উপায়

0
919
নিজের ব্যক্তিত্ব ধরে রাখার কিছু উপায়
3.7 (73.33%) 9 votes

ব্যক্তিত্ব মানুষের বড় একটি গুন বা সম্পদ। কথায় আছে ব্যক্তিত্বহীন মানুষ পশুর সমান। যার ব্যক্তিত্ব নাই সে সমাজের মানুষের কাছে মূল্যহীন। ব্যক্তিত্ব মানুষের বড় একটি সম্পদ। ব্যক্তিত্বহীন মানুষ্ কখনো একটা দেশের সম্পদ হতে পারে না। মানুষ মৃত্যুর পরও বেঁচে থাকে তার ব্যক্তিত্বের জন্য।

মানুষ তার সুন্দর চেহারার জন্য সমাজের কাছে লোকের কাছে বড় হয়ে উঠে না, বড় হয়ে উঠে তার ব্যক্তিত্বের জন্য। এই ব্যক্তিত্বকে ধরে রাখতে মানুষকে কঠোর পরিশ্রম করার দরকার হয়না। নিজের ভিতরের মানুষটাকে সঠিক ও সুন্দর ভাবে উপস্থাপনা করতে পারলে ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠবে।

যার ব্যক্তিত্ব অনেক সুন্দর সেই মানুষটাই সব চেয়ে বেশি সুন্দর। সৌন্দর্য মানুষকে বড় করে তুলে না, বড় করে তুলে তার ব্যক্তিত্ব। সৌন্দর্য ধরে রাখার জন্য মানুষ অনেক চেষ্টা করে কিন্তু সেই সৌন্দর্য ফুটে উঠে একমাত্র ব্যক্তিত্বে। সৌন্দর্যের দিকে না ঝুঁকে নিজেকে আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে ব্যক্তিত্বের মাধ্যমে।

নিজের ব্যক্তিত্বকে সঠিক ও সুন্দর ভাবে গড়ে তুলতে প্রতিটা মানুষের উচিত খারাপ দিকগুলোকে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া।

আসুন নিজের ব্যক্তিত্ব ধরে রাখার কিছু উপায় জেনে নেইঃ

  • অশালীন ভাষা ব্যবহার নিজের ব্যক্তিত্বকে অনেক নিচে নামিয়ে থাকে। মানুষ নিজেও জানেনা অশালীন ভাষা তার ব্যক্তিত্ব নষ্ট করে দিচ্ছে দিনের পর দিন। বন্ধু-বান্ধব, পাড়া-প্রতিবেশী, রাস্তাঘাটে, ছোট-বড় সবার সাথে শালীন ভাষা ব্যবহার করতে হবে। শালীন ভাষা ব্যবহারের মাধমে নিজের ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠে। ব্যক্তিত্ব বিকাশের একটি বড় মাধ্যম হচ্ছে শালীন ভাষা।
  • ছোট হোক বড় হোক সবাইকে তার প্রাপ্য সম্মান দিতে হবে। অনেকের ধারণা সম্মান দিতে গিয়ে সে নিজে ছোট হয়ে যাবে। এ ধারনাটি ভুল বরং সম্মান দিলে তার সম্মান আরো দ্বিগুণ বেড়ে যায়। প্রাপ্য সম্মান তার ব্যক্তিত্বে অনেক প্রভাব ফেলে। তাই নিজের ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তুলতে ছোট হোক বড় হোক সবাইকে তার প্রাপ্য সম্মান দিতে হবে।
  • আচার আচরণের মাধমে ব্যক্তিত্ব ফুটে উঠে। আপনি একজনের সাথে কথা বলছেন যদি আপনার আচার আচরণ হয়ে উঠে অস্বাভাবিক তাহলে আপনার ব্যক্তিত্ব নষ্ট হয়ে যাবে। নিজের ব্যক্তিত্বকে ধরে রাখতে আচার আচরণ হতে হবে মার্জিত ও স্বাভাবিক ।
  • ক্রোধ মানুষের সবচেযে খারাপ একটি দিক। মানুষের ক্রোধ এর কারণে ব্যক্তিত্ব নষ্ট হয়ে যায়। ব্যক্তিত্ব বিকাশে ক্রোধ, উত্তেজনা, আপনার আচরণ অনেক ভূমিকা রাখে। কোন কোন কারণে আপনি নিজের ক্রোধ ধরে রাখতে পারেন না তা প্রথমে খুঁজে বের করুন এবং সেই ক্রোধ গুলো দূর করুন।
  • আত্মবিশ্বাস ও আত্মমর্যাদা নিজের মধ্যে গড়ে তুলুন। আত্মবিশ্বাস ও আত্মমর্যাদা আপনার ব্যক্তিত্বকে অনেক উপরে নিয়ে যাবে।
  • অন্যের ব্যক্তিগত ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করবেন না কারণ একটু ভেবে দেখুন অন্য কেহ যদি আপনার ব্যক্তিগত ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করে আপনার যেমন খারাপ লাগবে ঠিক তেমনি অন্যেরও খারাপ লাগবে। তাই অন্যের ব্যক্তিগত ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করা থেকে দুরে থাকুন।
  • কথা বলার সময় সুন্দর সুন্দর ভাষা ব্যবহার করুন। সুন্দর ভাষা আপনার ব্যক্তিত্ব ফুটিয়ে তুলবে অত্যাধিক।
  • পোশাক ব্যক্তিত্বকে ফুটিয়ে তুলে অনেক। আপনার ব্যক্তিত্বকে তুলে ধরুন পোশাকের মাধমে। পোশাক যেন পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে তা দামী হোক আর খুব নগন্য হোক। পোশাক হতে হবে মার্জিত।
  • সব সময় হাসি মুখে কথা বলুন। এতে আপনার কথার প্রতি আপনার নিজের আস্থা প্রকাশ পাবে। এতে আপনার আশপাশের মানুষগুলোও আপনার উপর আস্থা খুঁজে পাবে।
  • অতিরিক্ত কথা বলা থেকে নিজেকে বিরত রাখুন। অতিরিক্ত কথা যেমন নিজের ব্যক্তিত্বকে নষ্ট করে ঠিক তেমনি নষ্ট করে আপনার আশেপাশের পরিবেশ। যে কথাটি প্রয়োজনীয় শুধু সেই কথাটি বলুন। অতিরিক্ত কথা বলে নিজেকে সবার কাছে বেশি তুলে ধরতে যাবেন না কারণ অতিরিক্ত কথা কখনও আপনাকে মর্যাদা দিতে পারবে না বরং আপনাকে অনেক নিচে নামিয়ে নিয়ে আসবে।
  • আপনি যখন যেখানে যেমন ঠিক তেমনই থাকুন। যখন বন্ধুদের আড্ডায় থাকবেন তখন সেখানেই মনোযোগ দিন। পরিবার, অফিস এবং বাহিরে যে পরিবেশেই থাকুন না কেন নিজেকে ঠিক সেই ভাবে মানিয়ে নিন। এতে আপনার ব্যক্তিত্ব প্রকাশ পাবে অনেক গুন।
  • যার চরিত্র বলতে কিছু নেই তার মত দরিদ্র আর কেউ নেই। চরিত্ব সম্পন্ন মানুষ-ই প্রকৃত মানুষ। তাই ব্যক্তিত্ব অর্জনে চরিত্র অনেক ভূমিকা রাখে।
  • সব সময় ইতিবাচক চিন্তা করুন। ইতিবাচক চিন্তা যেমন আপনার ব্যক্তিত্ব বিকাশে অত্যাধিক ভুমিকা রাখে ঠিক তেমনি সমাজের উপরও প্রভাব ফেলে অনেক। নেতিবাচক চিন্তা থেকে নিজেকে দুরে রাখুন।
  • নিজেকে সকলের থেকে আলাদা ভাবে তুলে ধরার চেষ্টা করুন। অন্যের দেখাদেখি নয় সম্পূর্ণ নিজেকে নিজের মতন করে তুলে ধরুন। আপনি যেমন তেমন করেই তুলে ধরুন অন্যের কাছে। এমন ভাবে তুলে ধরুন যেন আপনাকে সবাই অনুসরণ করতে চায়।
  • বাঁকা বা জটিল কথা বলা থেকে দুরে থাকুন। বাঁকা বা জটিল কথায় যেমন কোনো কিছু সহজে প্রকাশ পায় না তেমনি বাঁকা বা জটিল কথা আপনার বাক্তিত্বকে নষ্ট করে দেয়। তাই বাঁকা বা জটিল কথা বলা থেকে দুরে থাকুন যত সম্ভব।
  • অন্যের কাজকর্মের জন্য প্রশংসা করুন এবং ধন্যবাদ দিন। এতে আপনার সাথে তার সম্পর্ক হয়ে উঠবে বন্ধুসুলভ।

উক্ত গুনগুলো যার মধ্যে বিরাজমান সেই ব্যক্তিত্ববান সঠিক মানুষ। এই গুনগুলোর মাধ্যমে সুন্দর ব্যক্তিত্বের অধিকারী হয়ে উঠতে পারবেন খুব সহজে।

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY