ভাল ব্লগার হতে করনীয় কি?

1
324
ভাল ব্লগার হতে করনীয় কি?
5 (100%) 8 votes

ব্লগ খুব মজার একটি ব্যাপার, তবে কেউ যদি আপনার ব্লগে ভিজিট না করে তাহলে এটি পিছিয়ে যাবে। মনে রাখবেন, একজন ব্লগার এর মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত তার ব্লগের ট্রাফিক বৃদ্ধি করে এটিকে যে কোন সার্চ ইঞ্জিনের উপরের দিকে রাখানোর চেষ্টা করা। এটি করতে অনেক সময় লাগতে পারে কিন্তু এটা অসম্ভব নয়।
একজন ভালো ব্লগার তিনি, যিনি একটি ভালো ব্লগ লিখে থাকেন। আর ভালো ব্লগ লিখতে হলে কতগুলো নিয়ম অনুসরণ করতে হয়। একজন ভালো ব্লগারের গুণ হলো তিনি সব সময় নিয়ম কানুন মেনে ব্লগ লিখে থাকেন, আর এই নিয়ম কানুন গুলো পাঁচটি ভাগে ভাগ করে নিম্নে আলোচনা করা হলো-

প্রথম ধাপ- একটি ব্লগ লেখার শুরু

write blog

১) ব্লগ শুরু

ব্লগিং এর শুরুতে যদি আপনার নিজস্ব ব্লগ না থেকে থাকে তাহলে ব্লগাররা ওয়ার্ডপ্রেসের মাধ্যমে ব্লগিং শুরু করতে পারেন। এটি কত মানুষ আপনার ব্লগ দেখছে তার ও পরিসংখ্যান দেখার সুযোগ করে দেয়। আর যদি আপনার নিজের ব্লগ থাকে তাহলে তো খুবই ভালো কথা। পরর্বতী পদক্ষেপে চলে যাওয়া যায়।

২) আপনার পছন্দের একটি বিষয় নির্বাচন করুন

একটি আকর্ষণীয় ব্লগ লিখতে হলে সেই বিষয়ের প্রতি আপনার আগ্রহ থাকতে হবে এবং সেই বিষয় সম্পর্কে সকল কিছু পাঠকদের সাথে শেয়ার করতে হবে। সব সময় মনে রাখতে হবে ব্লগে এমন অন্যন্য কিছু রাখতে হবে যেন তা আমাদের ব্যাক্তিত্ব কে ফুটিয়ে তোলে। আপনি যে কোন বিষয়ের উপরেই লিখতে পারেন যা আপনি ভালোবাসেন, উদাহরণ স্বরূপ বলা যায় ফ্যাশন, খাদ্য, ভ্রমণ, প্রযুক্তি বা অন্য যে কোন কিছুই। আপনার স্বাধীনতা আছে যে কোন বিষয় পছন্দ করার যেটায় আপনার আগ্রহ আছে।

৩) আপনাকে প্রচুর পড়তে হবে

একজন ব্লগার হওয়া হয়তো সহজ, কিন্তু ব্লগিং এ সাফল্য পেতে অনেক প্রচেষ্টা বা দৃঢ়তা প্রয়োজন হয়। পড়া হচ্ছে একজন সফল ব্লগার হয়ে উঠার মূল চাবিকাঠি। লেখার নতুন নতুন পথ এবং দক্ষতা বাড়ানোর জন্য আমাদেরকে অন্য ব্লগারের পোষ্টে যেতে হবে। পড়াশুনা যে শুধুমাত্র ব্যাকরণগত ত্রুটি উন্নত করতে সাহায্য করে তা নয়, এটি অন্ধকার দূর করে জ্ঞাণের আলো খুলে দেয় এবং চিন্তা ও তথ্যের বিকাশ কে পরিপূর্ণ করে যা আমাদের ব্লগ লিখা শুরু করার জন্য অবশ্যই দরকার। আপনার নিজেকে সবসময় একজন ছাত্র মনে করে শেখার জন্য তৈরী থাকতে হবে। আপনার যেই বিষয়ের উপর আগ্রহ রয়েছে সেই সম্পর্কে অন্য ব্লগাদের লেখা পড়তে হবে।

দ্বিতীয় ধাপ- ব্লগকে সহজেই যেন খুজে পাওয়া যায়

blog search

১) ব্লগের ডিজাইন আপনি নিজেই করতে পারেন

আপনি যদি ফ্যাশন, ভ্রমণ বা খাদ্য সম্পর্কে ব্লগ লিখতে চান তবে পাঠকদেরকে আগ্রহী এবং আকৃষ্ট করার জন্য বিষয় সম্পর্কিত থিম পছন্দ করতে হবে। চেষ্টা করতে হবে ব্লগ যেন সহজ সরল এবং পেশাদারী নকশা যুক্ত হয়।

২) সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন (এসইও) সম্বন্ধে শিখতে হবে

সার্চ ইঞ্জিন হল যেখানে গিয়ে আমরা কোন কিছু অনুসন্ধান করি, যেমন-গুগল। কিছু কীওয়ার্ড আছে যা দ্বারা আপনার ব্লগ কে মানুষ সহজেই খুজে পাবে। তাই কিভাবে সার্চ ইঞ্জিনের প্রথমে অবস্থান করা যায় তা আপনাকে শিখতে হবে।

৩) এখন এই কীওয়ার্ডগুলোর উপর ফোকাস করার প্রচেষ্টা করতে হবে

আপনাকে এমন একটি বিষয় পছন্দ করতে হবে যার লক্ষ্যে পৌছতে হয়তো অনেক সময় লাগবে তবে এটা সফলতা হবে অনেক বড়। আপনি এই কিওয়ার্ড গুলোর সাথে সমন্বিত হয়ে ব্লগ পোষ্টে বিভিন্ন ধরনের সংযুক্তি তৈরী করতে পারেন।

৪) প্রাসঙ্গিক লিঙ্ক গুলো আপনার হোম পেইজ রাখতে আপনাকে যা করতে হবে

ব্লগিং এ পদ্দোন্নতির সিদ্ধান্তের মূলভিত্তি হলো কতগুলো ব্যাকলিঙ্ক আপনার ওয়েব সাইটে রয়েছে। এই লিঙ্ক গুলো আপনি পেতে পারেন নিবন্ধ লিখে এবং তা পরিচালকের কাছে পেশ করার মাধ্যমে, অতিথি লেখক হিসেবে অন্য উচ্চ ট্রাফিক ব্লগ পোস্ট লিখে, সামাজিক যোগাযোগ সাইট ব্যবহার করে, সোশ্যাল বুকমার্কিং সাইট ব্যবহার করে এবং লিঙ্ক কেনার মাধ্যমে। এই কৌশল গুলো খুবই সতর্কতার সাথে অবলম্বন করা আবশ্যক।

তৃতীয় ধাপ- উৎকৃষ্ট বিষয় বস্তু তৈরি করতে হবে

How to Choose the Right Blog subjects

সময়ের সাথে সাথে প্রাসঙ্গিক ও সামঞ্জস্যপূর্ণ পোস্টিং প্রদর্শন করতে হবে

গুগলের কাছে সহায়ক লিঙ্কের রাজ্য আছে যা সব সময় ই ছিলো এবং এটি তাদের ভিজিটরদের জন্য একটি বড় সুবিধা। মনে রাখতে হবে, গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন এর লক্ষ্য হল সম্ভাব্য সর্বোত্তম অভিজ্ঞতা সম্পন্ন লিঙ্ক গুলো অনুসন্ধানকারীকে প্রদান করা। আপনার ব্লগ যদি খুব ভালো হয় তবে সেখানে স্থান পাওয়া এবং টিকে থাকার জন্য অনুসন্ধানের শর্তগুলো মেনে চলতে হবে।

নির্দিষ্ট বিষয়ের মধ্যে থাকুন

আপনাকে যদি সঙ্গীত এর উপর ব্লগ লিখতে হয় তবে সেখানে গোধূলী কিংবা অন্য কোন কিছু পোষ্ট করা টা ঠিক হবে না। যদি বিষয়ের উপর আমাদের সুদৃঢ় অবস্থান না থাকে তবে ব্লগ সম্পর্কে ভিজিটরদের চিন্তা কে পরিবর্তন করতে পারব না।

আপনার পোস্ট কে অনন্য করে তুলুন

আপনার পোস্টে এমন কিছু থাকতে হবে যা অন্য কোন ব্লগে খুঁজে পাওয়া যাবে না। গঠন প্রণালী কে পরিবর্তন করার চেষ্টার মাধ্যমে পোষ্ট কে সংগঠিত করতে হবে। আপনার পোষ্ট যদি খুব ভালো ভাবে সংগঠিত হয় তবে পোষ্ট খুব ভালো হবে। পোষ্ট খুব ভালো হলেই তবে ব্লগ খুব ভালো হবে।

চতুর্থ ধাপ- ব্লগের প্রচার করতে হবে

Promote Your Blog

আপনার লিখিত ব্লগ উন্নত করতে হবে

আপনি যখন লেখা শুরু করবেন তখন ব্লগের উন্নতি সম্পর্কে জানতে হবে। ব্লগের উন্নতির জন্য শুরুতে পনের (১৫) টি ব্লগই যথেষ্ট। ঐ সময়টিতেই আপনার ব্লগ গুলো যথেষ্ট ভালো কি না মানুষ তা চিন্তা করবে। মনে রাখবেন আপনার লিঙ্ক গুলোকে নষ্ট করা যাবে না কারন সেগুলো কে আপনি ব্লগ প্রচারে অনেক ভাবে ব্যবহার করতে পারবেন।

# বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করা যাবে।

# পোস্ট ট্যাগ যুক্ত করতে হবে।

# নিজের সাইটে একটা লিঙ্ক যুক্ত করে একটি ফোরামে স্বাক্ষর করতে হবে। এটা খুব ভালো হবে ফোরাম এবং নিজের ব্লগ এর বিষয় একই হয়। যদিও ফোরামে পোস্ট দেয়া হয়েছে তবুও তা আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে।

# অন্যদের সাইটের সঙ্গে লিঙ্ক বিনিময় করা যেতে পারে। তাতে একটি ব্লগ রোল তৈরী হবে।

যখন তখন বিরতি নেয়া যাবে না

প্রত্যেক সপ্তাহে বিরতি গ্রহন করা যাবে না। আপনি বিরতিতে গেলে বা একটি লেখা থেকে আরেকটি লেখার বিরতি যদি লম্বা সময়ের হয় তবে ব্লগার পাঠকের মন থেকে দূরে সরে যেতে পারে, তাই বেশী বিরতি না নেয়াই ভালো।

পঞ্চম ধাপ- পাঠকদের সাথে আলাপচারিতা করা

discussion

১) প্রতিক্রিয়াশীল ব্লগার হতে হবে

যখন পাঠক কোন মন্তব্য করে থাকেন তখন বুঝতে হবে তারা ব্লগারের সাথে আলাপচারিতা কর‍তে আগ্রহী এবং ব্লগারের থেকে তারা উত্তর পেতে চান। যদি তাদের উপেক্ষা করা হয়, সেখানে একটি ঝুঁকি থেকে যায়, পাঠকগণ মনে করেন যে তাদের মন্তব্যে ব্লগারের কোন ইন্টারেস্ট নেই। এতে করে তারা ব্লগ পড়া বন্ধ করে দেন।

২) আলাপচারিতায় অংশ গ্রহন করা

আপনার ব্লগ পোস্টে পাঠকগণ যখন তাদের মন্তব্য করে থাকেন তখন এটা আপনার মৌলিক দায়িত্ব হয়ে দাঁড়ায় তাদের সাথে আলোচনা করার। ইহা পাঠকদের আপনার পোষ্টের প্রতি আগ্রহ বাড়ে। অন্যান্য ব্লগারদের সাথে ভালো সম্পর্ক নির্মাণেও এটি সহায়তা করে থাকে। সর্বদা আপনার পাঠকের মন্তব্যের উত্তর দিতে হবে এবং তাতে করে পাঠক গণ আপনার পক্ষ থেকে উপেক্ষিত বোধ বোধ করবে না।

৩) পাঠকদের কাছ থেকে প্রাপ্ত নির্দেশনা বিবেচনা করুন

এই কাজটি করার অনেক উপায় আছে, যেমন জরিপ বা নির্বাচনের মাধ্যমে, সাধারন জ্ঞাণের পরীক্ষা করার মাধ্যমে এবং এমনকি বিভিন্ন প্রতিযোগিতার মাধ্যমেও বিবেচনা করা যেতে পারে।

উপরোক্ত নিয়ম গুলো অনুসরন করার মাধ্যমে একজন সাধারন ব্লগার ভালো একজন ব্লগার হয়ে উঠতে পারে। এছাড়াও বিভিন্ন পরিস্থিতিভেদে ব্লগার তার লিখনীকে চমৎকৃত করার মাধ্যমে ভালো ব্লগার হয়ে উঠতে পারেন যা প্রত্যেক ব্লগারের ই লক্ষ্য হওয়া উচিত।

Afsana Tabassum

Afsana Tabassum

Afsana completed BSS LLB under national university. She is always helpful to everyone. She loves music very much and loves to read books specially poem. She also writes poem and story. On the other hand she is very conscious about fashion and beauty.
Afsana Tabassum

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

1 COMMENT

LEAVE A REPLY