শীতের রূপচর্চার সাতকাহন

0
271
শীতের রূপচর্চার সাতকাহন
1 (20%) 2 votes

শীতকালে শুষ্ক শীতল হাওয়া ও বাতাসে বেড়ে যাওয়া ধুলাবালুর কারণে ত্বক হয়ে যায় খসখসে ও মলিন। এর ফলে দেখা দেয় নানা সমস্যা, যেমন ত্বক ফেটে যাওয়া, ত্বকে চুলকানি ইত্যাদি| এভাবে ঘুম থেকে ওঠার পর চেহারাটা দেখায় একদম মলিন ও নিষ্প্রাণ। তাই শীতকালে ত্বকের সুস্বাস্থ্য রক্ষায় দরকার বাড়তি যত্ন ও সতর্কতা। এই প্রাণহীন চেহারাকে কীভাবে করে তুলবেন উজ্জ্বল ও ঝলমলে? ত্বকের ধরণ যেমনই হোক না কেন শীতে সহজ কিছু যত্ন আপনার চেহারাকে করে তুলবে আকর্ষণীয়, ত্বককে রাখবে স্বাস্থ্যকর ও সমস্যা মুক্ত।

ত্বক পরিষ্কার করা

শীত কাল এসেছে বলে কি ত্বক পরিষ্কার করতে হবে না? ঠান্ডা পানির ভয়ে ত্বক পরিষ্কার না করলে ত্বকে ব্রণের উপদ্রব দেখা দেয়। তাই শীতের রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে অবশ্যই ত্বক পরিষ্কার করে ঘুমাতে যাওয়া উচিত। ত্বক পরিষ্কার করার জন্য প্রথমে অলিভ অয়েল বা বেবি অয়েল দিয়ে মুখ ভালো করে ম্যাসাজ করে নিন। এরপর হালকা গরম পানিতে কাপড় ভিজিয়ে মুখটা মুছে ফেলুন। সবশেষে ভালো কোনও ফেসওয়াশ দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। ঘুম থেকে উঠেই মুখে ঠাণ্ডা পানির ঝাপটা দেবেন না।

winter-skin-care-2

শীতের সকালে মুখ ধোবার জন্য গরম পানি ব্যবহার করুন। মুখে হালকা করে কুসুম গরম পানির ঝাপটা দিন। তারপর ক্লিনজিং লোশন নিয়ে মুখে ম্যাসাজ করুন ২ মিনিট। ক্লিনজিং ব্যবহার করতে না চাইলে মধু নিয়ে মুখে ম্যাসাজ করুন। দুই মিনিট পর ভেজা তুলো দিয়ে মুছে ফেলুন। এবার খুব সামান্য একটু স্ক্রাবার নিন হাতের তালুতে। যতটুকু প্রয়োজন পুরো মুখের জন্য, তাঁর চাইতে অনেক নিন। এই সামান্য স্ক্রাবারের সাথে আপনার পছন্দের কোন একটা ফেসওয়াশ মেশান এবং মুখে মাখুন। যেভাবে ফেসওয়াশ দিয়ে মুখে পরিষ্কার করেন, ঠিক একইভাবে পরিষ্কার করে কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। এবার ত্বকে লাগিয়ে নিন আপনার পছন্দের কোন ফেসক্রিম। যারা ক্রিম ব্যবহার করতে চান না, তাড়া সমান সমান পরিমাণ পানি ও গ্লিসারিন মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন। ব্যস, তৈরি আপনার ত্বক সারাদিনের জন্য। পুরো দিন এবার আপনাকে দেখাবে ঝলমলে ও উজ্জ্বল।

ত্বকের শুষ্কতা শীতে শুষ্ক আবহাওয়ার জন্য ত্বক স্বাভাবিক আর্দ্রতা দ্রুত হারিয়ে ফেলে। তাই শীতকালে গোসলে সাবান কম ব্যবহার করুন। আর করলেও ময়েশ্চারাইজিং সাবান ব্যবহার করুন। এতে ত্বকে খসখসে ভাব কমে আসবে।

শীতের রূপচর্চায় ফেস প্যাক

অন্য সময়ের থেকে শীতের ফেস প্যাক হবে একটু আলাদা। কারণ, এসময়ে দরকার ত্বকের বাড়তি যত্ন। শীতে ত্বকের যত্নের জন্য জেনে নিন দুটি ফেস প্যাক বানানোর পদ্ধতি।

  • এক টুকরা পাউরুটি দুধে ভিজিয়ে নরম করে এর সঙ্গে খানিকটা পাকা কলা চটকে মিশিয়ে পেস্ট করে নিন। এরপর চন্দন গুঁড়া মিশিয়ে ওই মিশ্রণটি মুখে লাগান। ১৫ মিনিট পর পানি দিয়ে মুখটা ধুয়ে নিন। নিয়মিত ব্যবহারে শুষ্ক ত্বক মোলায়েম হয়ে ওঠে।
  • পাকা কলা, পাকা পেপে ও ময়দা এক সঙ্গে পেস্ট তৈরি করে নিন। এরপর এই পেস্টটি ১০/১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখুন। এরপর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক হয়ে উঠবে উজ্জ্বল ও মসৃন। এছাড়াও, ত্বককে মসৃণ ও কোমল রাখতে সামুদ্রিক কড মাছের যকৃত দ্বারা তৈরি তেল সম্পূরক উপাদান হিসেবে ব্যবহার করুন। এক্ষেত্রে লেবুর রস এবং কড লিভার তেল এর মিশ্রণ তৈরি করে নিয়ে শরীরে প্রয়োগ করতে পারেন। অতি দ্রুত ত্বকের গোলাপি আভা ফিরিয়ে আনতে অলিভ, কোকোনাট এবং জোজবা তেল কয়েক ফোঁটা আপনার গালে এবং ভ্রু এর হাড়ে ধীরে ধীরে প্রয়োগ করুন।

শীতের রূপচর্চায় হট ওয়েল ম্যাসেজ

শীত কালে অনেকেরই চুল রুক্ষ হয়ে যায় এবং আগা ফেটে যায়। এই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে শীতের রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে চুলে নারিকেল তেল বা অলিভ অয়েল গরম করে ম্যাসাজ করেন নিন। চুলের আগায় ও গোড়ায় ভালো করে হালকা গরম তেল ম্যাসাজ করে ঘুমিয়ে যান। সারা রাত চুলে তেলের উপস্থিতিতে চুলের রুক্ষ ভাব কেটে যাবে এবং চুল হয়ে উঠবে ঝলমলে উজ্জ্বল।

শীতের রূপচর্চায় চুলের যত্ন

চুলের যত্ন শীতের সময় চুলে খুশকির উপদ্রব বেড়ে যায়। খুশকিমুক্ত থাকতে নিয়মিত সপ্তাহে দুই দিন কিটোকোনাজল শ্যাম্পু ব্যবহার করুন।

winter-skin-care-3

শীতের রূপচর্চায় হাতের তালু ও পায়ের তলার যত্ন

হাতের তালু ও পায়ের তলার যত্ন এ সময় ১০ ভাগ ইউরিয়া, ভেসলিন লাগালে হাতের তালু অনেকটা মসৃণ হয়ে আসে। শীতে অনেকের পায়ের তলা ফেটে যায়। ৫ ভাগ সেলিসাইলিক অ্যাসিড অয়েন্টমেন্ট অথবা ভেসলিন নিয়মিত মাখতে পারেন।

শীতের রূপচর্চায় মুখের যত্ন

মুখের যত্ন ভালো ময়েশ্চা-রাইজারযুক্ত ক্রিম ব্যবহার করতে পারেন। যাঁদের ব্রণের সমস্যা আছে, তাঁরা ক্রিমের সঙ্গে একটু পানি মিশিয়ে নিতে পারেন। শীত আসছে বলে ভাববেন না যে সানস্ক্রিন ব্যবহার করার প্রয়োজনীতা কমে গেছে। শীতকালেও বাইরে বের হওয়ার ৩০ মিনিট আগে সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

শীতের রূপচর্চায় ঠোঁটের যত্ন

ঠোঁটের যত্ন ঠান্ডা বাতাসে ঠোঁট বারবার ফেটে যায়। কখনো এতটাই ফেটে যায় যে চামড়া উঠে আসে ও রক্ত বের হয়। কখনোই জিভ দিয়ে ঠোঁট ভেজানো উচিত নয়। কুসুম গরম পানিতে পরিষ্কার একটি কাপড় ভিজিয়ে নিয়ে ঠোঁটে হালকা করে তিন-চারবার চাপ দিন। তারপর ভেসলিন বা গ্লিসারিন পাতলা করে লাগিয়ে নিন। ঠোঁটের জন্য ভালো কোনো প্রসাধনী ব্যাগে রাখুন এবং দিনে তিন-চারবার লাগাতে পারেন।

শীতের রূপচর্চায় ঘুম

ভাল ঘুম ত্বকের জন্য উপকারী। তাই ত্বকের যত্নে অবশ্যই সিল্ক এর বালিশ ব্যবহার করুন। এতে আপনার ঘুম পরিষ্কার হবে এবং আপনার ত্বক প্রাণবন্ত হয়ে উঠবে। রাতে ঘুমানোর আগে ও গোসলের পর নিয়মিত ময়েশ্চারাইজিং লোশন ব্যবহার করলে ত্বকের খসখসে ভাব দূর হবে। ফলে চুলকানিও হবে না এবং ত্বকও ফাটবে না। ত্বকের আর্দ্রতা ও ঔজ্জ্বল্য বাড়াতে রোজ গোসলের পর এবং রাতে ঘুমানোর আগে অলিভ অয়েল অথবা লিকুইড প্যারাফিন মাখতে পারেন।

শীতের রূপচর্চায় খাবার

সবুজ শাকসবজি ত্বকের জন্য একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রাকৃতিক উপাদান। এটা আপনি রান্না করে অথবা রস বানিয়ে খেতে পারেন। যদি রস বানিয়ে খেতে চান তাহলে প্রতিদিন এক কাপ করে নিয়মিত খাবেন। এটা আপনার ত্বকের বর্ণ উজ্জ্বল রাখবে এবং আপনার পরিপাকতন্ত্র সচল রাখবে। দিনে অন্তত্য ৮ গ্লাস বেশি পানি পান করুন, যাঁদের পুরোনো চর্মরোগ যেমন সোরিয়াসিস, একজিমা, ইকথায়সিস ইত্যাদি আছে, তাঁদের ত্বকের সমস্যা এই সময় বেড়ে যেতে পারে। তাই তাঁদের হতে হবে আরও সচেতন। প্রয়োজনে আগে থেকেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

Comments

লেখাটি পড়ে কেমন লাগলো ?

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY